১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মঠবাড়িয়ায় দুই কলেজ ছাত্রী গণধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেফতার

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি ।। পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় দুই কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ মামলার এজাহারনামীয় আসামি ধর্ষক আবু বকর সাগর (২০) কে অভিযান চালিয়ে থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আজ শুক্রবার সকালে মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপন ও মঠবাড়িয়া থানার ওসি আ.জ.মোঃ মাসুদুজ্জামানের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে পার্শবতী ভান্তারিয়া উপজেলার চড়খালী ফেরী ঘাট এলাকা থেকে ধর্ষক সাগরকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত সাগর উপজেলার উত্তর মিঠাখালী গ্রামের জাহাঙ্গীর ওরফে কালুর ছেলে।

এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার এক কলেজছাত্রীর নানা বাদী হয়ে ৪ জন নামীয় ও অজ্ঞাত ২/৩ জন আসামি করে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা করেন। এদিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই দুই কলেজ ছাত্রীকে শুক্রবার সকালে পিরোজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি আ,জ,মো, মাসুদুজ্জামান জানান,রাত থেকে অভিযান চালিয়ে সকালে এজাহারনামীয় আসামি ধর্ষক সাগরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ধর্ষণে জড়িত থাকার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।

তিনি আরও জানান, এ গণধর্ষণে জড়িত অন্য আসামীদের গ্রফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, বরগুনা জেলার বামনা উপজেলার ডৌয়াতলা গ্রামের ওই দুই কলেজ ছাত্রী বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় হলতা ডৌয়াতলা ওয়াজেদ আলী খান ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির জন্য কলেজে কাগজপত্র জমা দেন। জমা শেষে দুপুরে প্রতিবেশী সহপাঠী সোহাগ খান (২০) ও শাহাদাৎ (২১) কে নিয়ে মঠবাড়িয়া হয়ে ভান্ডারিয়ার উপজেলার হরিনপালা ইকোপার্কে ঘুরতে যাচ্ছিলেন। দুপুরের সময় তাদের বহনকারী ইজিবাইক মঠবাড়িয়া উপজেলার উত্তর মিঠাখালী (মাঝেরপুল) নামক স্থানে নষ্ট হয়। এসময় স্থানীয় তিন চারজন যুবক তাদের জিম্মি করে। এরপর আর্শেদ মিয়ার বাড়ীর সম্মুখে সরকারী পুকুর পাড়ে নিয়ে দুই ছাত্রীকে মারধর করে মোবাইল, টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। পরে নির্জনে নিয়ে তারা ওই মেয়ে দুটির ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। এরপর ওই কলেজ ছাত্রীর অভিভাবকদের কাছে মোবাইলে ফোন দিয়ে ১৫ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবী করে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

অন্য খবর