৫ই জুলাই, ২০২০ ইং | ২১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনাকালে বরিশাল স্টেডিয়ামে সুনসান নীরবতা

নিজস্ব প্রতিবেদক ।। করোনার প্রভাবে বরিশাল স্টেডিয়ামে এখন সুনসান নীরবতা। গেটে রয়েছে তালা। খেলোয়াড়দের অনুশীলন ও খেলা সবই বন্ধ। যে যার মতো বাসায় অনুশীলন করছেন বলে জানালেন খেলোয়াড়রা। অনলাইনে অনুশীলনের নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে বলে জানালেন কোচ এবং প্রশিক্ষকরা। করোনামুক্ত হওয়ার পর খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতে পরিকল্পনা গ্রহন করা হবে বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

বরিশালের শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়াম। বিকেল হতেই খেলোয়াড়দের কলরবে মুখরিত থাকত মাঠ। আউটার স্টেডিয়ামে চলত বেসরকারি ক্রিকেট ও ফুটবল একাডেমির প্রশিক্ষণ। করোনার প্রভাবে ২৪ মার্চ থেকে থেমে গেছে সব কিছু। এখন স্টেডিয়াম চত্বর জুড়ে শুধুই নীরবতা। গেটে ঝুলছে তালা। করোনার সংক্রামণ এড়াতে সরকারের নির্দেশনা অনুসারে সবাই থাকছেন নিজ বাড়িতে। সেখানে যে যার মত করে করছে অনুশীলন বলে জানালেন খেলোয়াররা।

খেলোয়াড়রা জানান, গত এক মাস ধরে আমাদের খেলাধুলা বন্ধ। তবে, কোচ আমাদেরকে অনলাইনে নির্দেশনা দিয়েছেন। বলেছেন, এ কাজগুলো করলে তোমরা ফিট থাকতে পারবে।

এখন ভিডিও কনফারেন্স ও মুঠোফোনে খেলোয়ারদের অনুশীলনের বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে বলে জানালেন সংশ্লিষ্টরা।

বরিশাল জেলা দলের কোচ ইব্রাহীম কামাল বলেন, বয়সভিত্তিক দলগুলোর ফিটনেস ধরে রাখার জন্য তাদের অনলাইনে বেশকিছু ভিডিও দেয়া হয়েছে। তারা বাসা থেকে এগুলো করলে তাদের ফিটনেস ভালো থাকবে।

দেশ করোনামুক্ত হওয়ার পর খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতে পরিকল্পনা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে বরিশালের জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান।

তিনি বলেন, দেশে করোনামুক্ত হলে আমরা খেলোয়াড়দের জন্য নতুন পরিকল্পনা নেয়া হবে। সেই সঙ্গে যাতে তারা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারে সেটা বিবেচনা করে পরিকল্পনা সাজানো হচ্ছে।

বরিশালে ক্রিকেট ও ফুটবল খেলোয়ারের সংখ্যা ছয় শতাধিক। এরা ৩টি ক্রিকেট একাডেমি ও ১টি ফুটবল একাডেুমর মাধ্যমে নিয়মিত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করত স্টেডিয়াম চত্বরে। এরমধ্যে প্রথম বিভাগ এবং প্রিমিয়ার ডিভিশনে অংশ নেয়া খেলোয়াড় আছে প্রায় ১শ’র মতো।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

অন্য খবর